শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১

admin | অন্যান্য অপরাধ জনপ্রিয়

প্রকাশ: সোমবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৯

স্বামীর নির্যাতনের শিকার হয়ে জাতীয় জরুরি সেবার হটলাইন ৯৯৯-এ ফোন করেন ডা. ফাতেমা জাহান বারী। নির্যাতন থেকে বাঁচতে দ্রুত উদ্ধারের আকুতি জানান তিনি। শনিবার রাতে ডা. ফাতেমার এমন কল পেয়ে ‘৯৯৯’ থেকে তার নিকটস্থ রমনা থানাকে জানানো হয়। এরপর রাত সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশের একটি টিম ১৮, বেইলি রোডের সুপিরিয়র সরকারি কোয়ার্টারে অভিযান চালিয়ে আহতাবস্থায় ডা. ফাতেমাকে উদ্ধার করে। তাকে রাতেই ভর্তি করা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি)।

এরপর ফাতেমা (৩৯) তার স্বামী অতিরিক্ত সচিব ডা. জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে রমনা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলার পর সরকারি কোয়ার্টার থেকে জাকির হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। জাকির হোসেন বর্তমানে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত রয়েছেন। জানা গেছে, অতিরিক্ত সচিবের গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায়। তার স্ত্রীর গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে। এই দম্পতির কোনো সন্তান নেই। গ্রেপ্তারের পর অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে অতিরিক্ত সচিব বারবার বলছেন, ‘কোনো প্রশ্নের জবাব দিতে তিনি প্রস্তুত নন।’

রমনা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, ৯৯৯-এ ফোন করে ডা. ফাতেমা জানিয়েছেন তাকে বাসার ভেতরে মারধর করা হচ্ছে। এরপর পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। তার মুখসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ফাতেমা পুলিশকে জানান, সপ্তাহখানেক আগেও জাকির হোসেন তাকে মারধর করেন। এতে তার শরীরে ৯টি সেলাই দিতে হয়। তখন লোকলজ্জার কারণে তিনি বিষয়টি পুলিশকে জানাননি। শনিবার ফের তার ওপর শারীরিক নির্যাতন চালানো হয়। উপায়ন্তর না দেখে তিনি ‘৯৯৯’-এ ফোন করতে বাধ্য হয়েছেন। সূত্র: দেশরুপান্তর।

Ad The It King