শনিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২১

admin | জনপ্রিয় বিনোদন

প্রকাশ: সোমবার, আগস্ট ২৪, ২০২০

সর্বকালের সেরা আবেদনময়ী মেরিলিন মনরো, মৃত্যুর আগে ঘটান গর্ভপাত

তাকে নিয়ে কৌতূহলের এমনিতেই শেষ নেই। মাথা ঘুরিয়ে দেয়া সৌন্দর্য আর অভিনয় দক্ষতার পাশাপাশি যৌনতার প্রতীক হিসেবে গোটা বিশ্বে ধারাবাহিকভাবে চর্চা হয়েছে মার্কিন অভিনেত্রী মেরিলিন মনরোকে নিয়ে। 

পৃথিবীর সর্বকালের সেরা যৌনাবেদনময়ী সেলিব্রিটির তালিকার শীর্ষে আজও মেরিলিন মনরোর অবস্থান। রহস্যময়ী এই অভিনেত্রী মাত্র ৩৬ বছরের জীবনকালে খ্যাতি, সমালোচনা, রহস্যময়তা সবই ছিল মেরিলিন মনরোর জীবন ঘিরে। অর্ধশতাধিক বছর পার হয়ে গেছে তিনি চলে গেছেন না-ফেরার দেশে। অথচ এখনো তিনি তুমুল জনপ্রিয় বিশ্বের কোটি মানুষের কাছে।

৫৮ বছর পরে সম্প্রতি প্রকাশিত মনরোর এক জীবনীগ্রন্থে শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক! সেখানে জানানো হয়, মৃত্যুর সপ্তাহখানেক আগে জোর করে তার গর্ভপাত ঘটানো হয়েছিলো।

মার্কিন প্রেসেডেন্ট জনএফ কেনেডির সঙ্গে মেরিলিন মনরো

মার্কিন প্রেসেডেন্ট জনএফ কেনেডির সঙ্গে মেরিলিন মনরো

মার্কিন প্রেসেডেন্ট জনএফ কেনেডির ছোট ভাই রবার্ট কেনেডি ববি তাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গর্ভপাত ঘটান। ববি তখন আমেরিকার এটর্নি জেনারেল ছিলেন। ‘নরমা জিন: দ্য লাইফ অব মেরিলিন মনরো’ শীর্ষক গ্রন্থটি লিখেছেন ফ্রেড লরেন্স গিলস। গেল ১৯ এপ্রিল বইটি প্রকাশিত হয়েছে।

মনরো মারা যান ১৯৬২ সালের ৪ আগস্ট। পুলিশ তার বাড়ি থেকে মৃত দেহ উদ্ধার করেছিলে। তখন বলা হয়েছিলো অতিরিক্ত নেশা গ্রহণ করে তিনি আত্মহত্যা করেছেন! মার্কিন সরকার এমন প্রচারই করেছিলো।

যদিও মনরোর মৃত্যু নিয়ে তখন মার্কিন গণমাধ্যমে প্রশ্ন তোলা হয়েছিলো। তার মৃত্যুকে পরিকল্পিত হতাকাণ্ড বলেও ঈঙ্গিত দেয়া হয়েছিলো। প্রেসিডেন্ট জনএফ কেনেডির সঙ্গে মনরোর প্রেমের কথাও প্রচার করা হয়েছিলো সে সময়।

মনরোর প্রেস এজেন্ট আর্থার পি জ্যাকবকে উদ্ধৃত করে বইটিতে বলা হয়েছে, কেনেডির ছোট ভাই ববি কেনেডি ২০ জুলাই গোপনে তাকে ভর্তি করেন লস এঞ্জেলসের সিডারস অব লেবানন হাসপাতালে। সেখানেই ২২ জুলাই তার গর্ভপাত ঘটানো হয়।

বইটিতে বলা হয়েছে, মনরো তখন তিন মাসের গর্ভবতী। তাই কেনেডিকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন। বিয়ে না করলে সব ফাঁস করে দেবেন বলেও হুমকি দিয়েছিলেন।

মেরিলিন মনরো

মেরিলিন মনরো

মনরোর দ্বিতীয় স্বামী জোয়ি ডিম্যাজ্জিও বলেছেন, কেনেডি একজন লেডি কিলার! তার প্রাক্তন স্ত্রীর মৃত্যুর জন্য তিনিই দায়ী। তিনি আরো বলেন, আমি আগে থেকেই জানতাম মনরোকে কেনেডিই হত্যা করেছেন। কিন্তু এতবছর আমি চুপ ছিলাম। কারণ, দেশে কোনো বিপ্লব ঘটাতে চাইনি।

বইটিতে দাবি করা হয়েছে, মৃত্যুর ঠিক কিছুক্ষণ আগে মনরো কেনেডিকে ফোন করেছিলেন। কিন্তু কেনেডি ছিলেন নিরুত্তর।