সোমবার, অক্টোবর ১৮, ২০২১

‘মায়ের কথা ভেবে’ ১২ বছর বাবার ধর্ষণ সহ্য করলো কিশোরী

কিশোরীরর বয়স যখন ৬ বছর, তখন থেকেই বাবার ধর্ষণের শিকার হচ্ছিলেন। বুঝ হওয়ার পরও বাবা-মায়ের ডিভোর্সের আশঙ্কায় মুখ খুলেননি। তবে সম্প্রতি পুলিশের কাছে দ্বারস্থ হয়েছেন ১৮ বছরের কিশোরী।

ওই কিশোরী জানায়, কয়েকদিন আগে আবারও ৪৫ বছর বয়সী বাবার হাতে নির্যাতনের শিকার হন তিনি। এরপরই পুলিশের কাছে দ্বারস্থ হন তিনি। এখন ওই ধর্ষককে খুঁজছে মালয়েশিয়ার পুলিশ।

ধর্ষক পেশায় একজন ফ্যাক্টরি টেকনিশিয়ান। ছয় বছর বয়স থেকেই বাবার লালসার শিকার হচ্ছিল ওই কিশোরী। প্রায় প্রতিদিনই তার বাবা তাকে হেনস্থা করতো এবং তাকে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করতো।

সেবারাং প্রাই তেনগাহ জেলার পুলিশ প্রধান অ্যাসিস্টেন্ট কমিশনার শফি আব্দ সামাদ বলেছেন, দুই ভাইবোনের মধ্যে ওই কিশোরী বড়। তার মা একজন গৃহিনী। তার মায়ের অজান্তেই দীর্ঘদিন ধরে এমন কাজ করছিল কিশোরীর বাবা।

বাবা-মায়ের ডিভোর্স হয়ে যেতে পারে এই ভয়ে এতদিন ধরে এই কথা চেপে রেখেছিল ওই কিশোরী। বিশেষ করে তার মায়ের কথা চিন্তা করে কাউকেই বিষয়টি জানাননি। কিন্তু গত মঙ্গলবার নির্যাতনের শিকার হওয়ার পর সহ্যের বাধ ভেঙে যায় তার।

ওই কিশোরী জানায়, ওই ব্যক্তি যখন তার মেয়ের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছিল তখন তার স্ত্রী বাথরুমে ছিল। কিন্তু স্ত্রী বাথরুম থেকে বের হওয়ার পর ওই ব্যক্তি তার কর্মকাণ্ড বন্ধ করে দেয়।