শনিবার, নভেম্বর ২৭, ২০২১

admin | জনপ্রিয় বিনোদন

প্রকাশ: বুধবার, আগস্ট ১৯, ২০২০

বাবার ‘শাসনে’ থাকতে নারাজ, আদালতের দ্বারস্থ ব্রিটনি

যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় পপ তারকা ব্রিটনি স্পিয়ার্স আর বাবার শাসনে থাকতে চান না। ব্যক্তিগত জীবন ও অর্থসম্পত্তিতে বাবা জেমি স্পিয়ার্সের নিয়ন্ত্রণ থেকে মুক্তি চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন এই হলিউড অভিনেত্রী। 

জানা গেছে, ব্রিটনির মানসিক অসুস্থতার কথা বলে গত ১২ বছর ধরে তাকে দেখভালের নামে আইনী তত্বাবধায়ক (কনজারভেটর) নিযুক্ত হয়েছিলেন বাবা জেমি। বাবার বিরুদ্ধে তাকে মানসিক রোগী সাজিয়ে তার অর্থসম্পদ হস্তগত করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ রয়েছে ব্রিটনির। 

এরই মধ্যে ব্রিটনির ব্যক্তিগত জীবন ও অর্থসম্পদে তার নিজের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার জন্য ’‌হ্যাশট্যাগ ফ্রি ব্রিটনি’ আন্দোলন শুরু করেছেন তার ভক্তরাও। 

যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে অবস্থিত ক্যালিফোর্নিয়া আদালতে করা আপিলের নথি অনুসারে, ব্রিটনি তার ব্যক্তিগত জীবনের তত্বাবধায়ক হিসেবে বাবা জেমির ফিরে আসার ঘোরতর বিরোধী। ২০০৮ সালে জেমি কন্যা ব্রিটনির তত্বাবধায়ক নিযুক্ত হলেও গত বছর নিজের শারিরীক অসুস্থতার জন্য দায়িত্ব থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছিলেন। 

তখন ব্রিটনির সবকিছু দেখভালে ম্যানেজার নিযুক্ত হয়েছিলেন জোডি মন্টেগোমারি। এখন কিছুদিন ধরে আবার তার বাবা খবরদারি শুরু করেছেন। এরই মধ্যে ব্রিটনির ব্যক্তিগত অর্থসম্পদ নিজের মতো দেখভাল করছেন তিনি। আগামী ২২ আগস্ট জেমির দায়িত্বের মেয়াদ শেষ হবে। এরপর আর তা বাড়তে দিতে চান না ব্রিটনি। 

ব্রিটনি আদালতের আবেদনে বলেছেন, নিজের জীবন নিজেই চালাতে চান। সংগীত-বিনোদনের জগতে নিজের অবস্থান ফিরিয়ে আনতে চান। এজন্যই কারো অধীনে যেতে চান না। আদালত যেন তাকে উদ্ধার করে। আর বর্তমান ম্যানেজার জোডি মন্টেগোমারি দায়িত্বে থাকলে তার কোনো অসুবিধা নেই। 

২০০৭ সালে স্বামী কেভিন ফেডারলাইনের সঙ্গে বিয়ে বিচ্ছেদের পর কিছুটা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন ব্রিটনি। তখন তার দুই সন্তানকেও তার থেকে কেড়ে নেয়ায় একেবারেই বিপর্যস্ত হয়ে যান তিনি।