ফেসবুকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি, ডেপুটি জেলার প্রত্যাহার

0
115

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কটূক্তির দায়ে সাতক্ষীরা কারাগারের ডেপুটি জেলার ডলি আক্তার ওরফে জলি মেহেজাবিন খানকে প্রত্যাহার করে কারা অধিদপ্তরে সংযুক্ত করা হয়েছে।

রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) কারা অধিদপ্তরের ৫৮.০৪.০০০০.০২৪.০১.০১১.২০১৯.৩৬৯ নং স্মারকের পত্রে তাকে কারা অধিদপ্তরে সংযুক্তির আদেশ দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গত ৩ সেপ্টেম্বর ডেপুটি জেলার ডলি আক্তারের ব্যবহৃত জলি মেহেজাবিন খান নামক ফেসবুক আইডি থেকে একটি পোস্টকৃত ছবির মন্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বিলাই (বিড়াল) লিখে কটূক্তি করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ৩ সেপ্টেম্বর সকাল ৮টা ৪৯ মিনিটে তিনি তার ব্যবহৃত জলি মেহেজাবিন খান নামের ফেসবুকে একটি ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে লেখেন, ৫৬তম ব্যাচ কারারক্ষী বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের শপথ গ্রহণ ও সমাপনী কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান খান এমপি। এ অনুষ্ঠানের ধারাভাষ্যকার হিসেবে আপনাদের সঙ্গে আছি আমি…………।

ছবিতে কমেন্ট করেন অনেকেই। এর মধ্যে শারমিন ববি নামের একজন মন্তব্য করেছেন, ‘আফা মন্ত্রী বানান টা একটু ঠিক করে দেন, না হলে কিন্তু মাননীয় মন্ত্রী মাইন্ড খাইতে পারে।’ এ কমেন্টের প্রতিউত্তরে সাতক্ষীরার ডেপুটি জেলার ডলি আক্তার ওরফে জলি মেহেজাবিন খান লিখেছেন, ‘আমি চাটুকারিতা একদম পছন্দ করি না আফা (আপা), চাকরি করি জেলখানায়, এরকম বহু নামি-দামি ব্যান্ড (ব্র্যান্ড) ভেতরে আসলে বিলাই (বিড়াল) হয়ে যায়…যাই হোক, স্পেলিং মিসটেক হয়েছে এবং সেটা অনিচ্ছাকৃত।’ তার উত্তরে শারমিন ববি লিখেছেন, তোকেতো ভালো করেই চিনি, চাটুকারিতা যে করিস না সেটাও জানি, জাস্ট বানান ভুলটা চোখে পড়লো তাই তোকে জানালাম।’

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে তাকে কারা অধিদপ্তরে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা কারাগারের জেল সুপার আবু জায়েদ জানান, ডলি আক্তারকে কারা অধিদপ্তরে সংযুক্তির একটি পত্র পেয়েছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here